Source: https://www.integrityky.com/utilize-our-professional-file-sharing-system/
in , ,

অনলাইনে ফাইল শেয়ার করার ১৫ টি সেরা উপায়

অনলাইনে ফাইল শেয়ার করার অনেক ধরনের পদ্ধতি আছে। কিন্তু সেগুলো ব্যবহার করা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কষ্টকর ও ঝামেলাযুক্ত, কারণ ফাইল শেয়ার করার পূর্বে রেজিস্ট্রেশন করতে হয়, অ্যাপ ডাউনলোড করতে হয়, ক্লাউড স্টোরেজ সেটআপ করতে হয় ইত্যাদি। ফাইল শেয়ারিং বলতে আমরা পিয়ার টু পিয়ার টরেন্ট শেয়ারিং এর কথা বলছি না। আজকে আমরা জানবো এমন ১৫ টি ফাইল শেয়ারিং মাধ্যম সম্পর্কে যেগুলোতে কোনো ধরনের রেজিস্ট্রেশনের ঝামেলা ছাড়াই, ড্রাগ এন্ড ড্রপ করে ফাইলের লিংক শেয়ার করা যায়। এবং অন্য যে কেউ সেই লিংক ব্যবহার করে ফাইলটি ডাউনলোড করতে পারে।

রিপ ডট আইও (Reep.io)

২০১৪ সাল থেকে অসাধারণ সেবা দিয়ে আসছে এই ওয়েবসাইট। ব্রাউজারের মধ্যে পিয়ার টু পিয়ার ফাইল শেয়ারিং করতে পারবেন এর মাধ্যমে। এর কিছু ফিচার হচ্ছে,

  • এনক্রিপশন পদ্ধতিতে শেয়ার হয়।
  • ড্রাগ এন্ড ড্রপ পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়।
  • যেকোনো সাইজের ফাইল কিংবা যেকোনো সংখ্যার ফাইল শেয়ার করতে পারবেন।
  • পাসওয়ার্ড দ্বারা সুরক্ষিত করে শেয়ার করতে পারবেন।

জাস্ট বিম ইট (JustBeamIt)

এই ওয়েবসাইটও রিপ ডট আইও এর মতোই কাজ করে এবং ফাইল শেয়ারিং পদ্ধতিও একই, পিয়ার টু পিয়ার। এটাকে রিপ ডট আইও এর পরিবর্তে ব্যবহার করা যেতে পারে। এর কিছু ফিচার হচ্ছেঃ

  • ১০ মিনিটের মধ্যে অপরপক্ষ ফাইল ডাউনলোড না করলে সেটা স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে যাবে।
  • যেকোনো সাইজের ফাইল কিংবা যেকোনো সংখ্যার ফাইল শেয়ার করতে পারবেন।
  • কোনো ধরনের এনক্রিপশন পদ্ধতি ব্যবহার করা হয় না।
  • পাসওয়ার্ড দ্বারা সুরক্ষিত করে ফাইল শেয়ার করার কোনো পদ্ধতি নেই।

ফাইল সেন্ডার (FileSender)

এই ওয়েবসাইটের ফাইল শেয়ারিং পদ্ধতিও পিয়ার টু পিয়ার। যদিও, এটা কাজ করে অনেকটা ব্লুটুথ কানেকশনের মতো। একপক্ষ থেকে কানেকশন স্থাপন করার জন্যে অপরপক্ষে একটি কোড পাঠানো হবে, সেই কোড অপরপক্ষ দ্বারা গ্রহণ করা হলেই, ফাইল প্রেরণ করা যাবে। এর কিছু ফিচার হচ্ছে,

  • এনক্রিপশন পদ্ধতিতে শেয়ার হয়।
  • যেকোনো সাইজের ফাইল কিংবা যেকোনো সংখ্যার ফাইল শেয়ার করতে পারবেন।
  • পাসওয়ার্ড দ্বারা সুরক্ষিত করে ফাইল শেয়ার করার কোনো পদ্ধতি নেই।

আপলোড ফাইলস (UploadFiles)

এই ওয়েবসাইটে আপনার ফাইল আপলোড করে সেটার থেকে লিংক জেনারেট করে তারপরে ফাইল শেয়ার করতে পারবেন। এটা পিয়ার টু পিয়ার পদ্ধতিতে ফাইল শেয়ার করে না। এর কিছু ফিচার হচ্ছে,

  • যত ইচ্ছে ফাইল আপলোড করতে পারবেন।
  • ১০০ গিগাবাইট সাইজের মধ্যে যেকোনো ফাইল আপলোড করতে পারবেন।
  • এনক্রিপশন পদ্ধতিতে শেয়ার হয়।
  • ৩০ দিনের মধ্যে অপরপক্ষ ফাইল ডাউনলোড না করলে সেটা স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে যাবে।

ফাইল শেয়ারিং ২৪ (FileSharing24)

এই ওয়েবসাইটে কোনো ফাইল একবার আপলোড করা হলে, সেই লিংক ইমেইল কিংবা অন্য যেকোনো মাধ্যমে শেয়ার করা যায়। এর কিছু ফিচার হচ্ছেঃ

  • অসংখ্য ফাইল আপলোড করতে পারবেন।
  • ৫ গিগাবাইটের থেকে বেশি সাইজের কোনো ফাইল আপলোড করতে পারবেন না।
  • এনক্রিপশন পদ্ধতিতে শেয়ার হয়।
  • পাসওয়ার্ড দ্বারা সুরক্ষিত করে শেয়ার করতে পারবেন।
  • একটি ফাইল ২৪ ঘন্টা পর্যন্ত একটিভ থাকে, তারপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে যায়।

ফাইল ড্রপার (File Dropper)

এই ওয়েবসাইটে বিশেষ কোনো ফিচার নেই,যদিও এটা খুব সহজেই ব্যবহার করা যায়। এর কিছু ফিচার হচ্ছেঃ

  • অসংখ্য ফাইল আপলোড করতে পারবেন।
  • ৫ গিগাবাইটের থেকে বেশি সাইজের কোনো ফাইল আপলোড করতে পারবেন না।
  • পাসওয়ার্ড দ্বারা সুরক্ষিত করে ফাইল শেয়ার করার কোনো পদ্ধতি নেই।
  • কোনো ধরনের এনক্রিপশন পদ্ধতি ব্যবহার করা হয় না।
  • একটি ফাইল ২৪ ঘন্টা পর্যন্ত একটিভ থাকে, তারপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে যায়।

সেন্ড এনিহোয়্যার (Send Anywhere)

এই ওয়েবসাইটের গতি কিংবা ইন্টারফেস ততটা ভালো না হলেও, এর মোবাইল অ্যাপটি বেশ দ্রুতগতির। আর সে হিসেবে এই লিস্টে এই ওয়েবসাইটটি জায়গা করে নিয়েছে। এর কিছু ফিচার হচ্ছেঃ

  • অসংখ্য ফাইল আপলোড করতে পারবেন।
  • ১ গিগাবাইটের থেকে বেশি সাইজের কোনো ফাইল আপলোড করতে পারবেন না।
  • পাসওয়ার্ড দ্বারা সুরক্ষিত করে ফাইল শেয়ার করার কোনো পদ্ধতি নেই।
  • কোনো ধরনের এনক্রিপশন পদ্ধতি ব্যবহার করা হয় না।
  • কোনো ফাইল একবার ডাউনলোড করার পরেই মুছে যায়।

প্লাস ট্রান্সফার (PlusTransfer)

২০১৪ সালে পিয়ার টু পিয়ার ফাইল শেয়ারিং পদ্ধতি নিয়ে বাজারে আসলেও, বর্তমানে এটি অন্যান্য ওয়েবসাইটের মতোই সাধারণ ফাইল শেয়ারিং সাইট। এর কিছু ফিচার হচ্ছেঃ

  • অসংখ্য ফাইল আপলোড করতে পারবেন।
  • ৫ গিগাবাইটের থেকে বেশি সাইজের কোনো ফাইল আপলোড করতে পারবেন না।
  • পাসওয়ার্ড দ্বারা সুরক্ষিত করে ফাইল শেয়ার করার কোনো পদ্ধতি নেই।
  • কোনো ধরনের এনক্রিপশন পদ্ধতি ব্যবহার করা হয় না।
  • একটি ফাইল ১ থেকে ১৪ দিন পর্যন্ত একটিভ থাকে, তারপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে যায়।

উই ট্রান্সফার (WeTransfer)

২০০৯ সাল থেকে ফাইল শেয়ারিং ওয়েবসাইট নিয়ে বাজারে আছে উই ট্রান্সফার। একেবারে সহজ পদ্ধতিতে ফাইল শেয়ারিং করার জন্যে তাঁরাই প্রথম নাম কামিয়েছে। এর কিছু ফিচার হচ্ছেঃ

  • অসংখ্য ফাইল আপলোড করতে পারবেন।
  • ২ গিগাবাইটের থেকে বেশি সাইজের কোনো ফাইল আপলোড করতে পারবেন না।
  • পাসওয়ার্ড দ্বারা সুরক্ষিত করে ফাইল শেয়ার করার কোনো পদ্ধতি নেই।
  • কোনো ধরনের এনক্রিপশন পদ্ধতি ব্যবহার করা হয় না।
  • একটি ফাইল ৭ দিন পর্যন্ত একটিভ থাকে, তারপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে যায়।

কিউ ট্রান্সফার (CueTransfer)

এই ওয়েবসাইটটি প্রায় উই ট্রান্সফারের মতোই কাজ করে। যদিও উই ট্রান্সফারের অনেক পরেই এটা বাজারে এসেছে। এর কিছু ফিচার হচ্ছেঃ

  • অসংখ্য ফাইল আপলোড করতে পারবেন।
  • ২ গিগাবাইটের থেকে বেশি সাইজের কোনো ফাইল আপলোড করতে পারবেন না।
  • পাসওয়ার্ড দ্বারা সুরক্ষিত করে ফাইল শেয়ার করার কোনো পদ্ধতি নেই।
  • কোনো ধরনের এনক্রিপশন পদ্ধতি ব্যবহার করা হয় না।
  • একটি ফাইল ২৪ ঘন্টা পর্যন্ত একটিভ থাকে, তারপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে যায়।

মেইল বিগ ফাইল (MailBigFile)

রেস্ট্রিকশনের মধ্যে আপনি যদি ছোটোখাটো ফাইল শেয়ার করতে চান তাহলে এই ওয়েবসাইটটি ব্যবহার করতে পারেন। সহজ ইন্টারফেস এবং দ্রুতগতির হওয়ায় এই সাইট অনেকেই পছন্দ করে থাকেন। এর কিছু ফিচার হচ্ছেঃ

  • একটি ফাইল ১০ দিন পর্যন্ত একটিভ থাকে, তারপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে যায়।
  • ২ গিগাবাইটের থেকে বেশি সাইজের কোনো ফাইল আপলোড করতে পারবেন না।
  • একসাথে সর্বোচ্চ ৫ টি ফাইল শেয়ার করা যায়।
  • অসংখ্য ফাইল আপলোড করতে পারবেন, যদিও একসাথে ২০ টি ফাইলের বেশি ডাউনলোড করতে পারবেন না।

ড্রপ ক্যানভাস (DropCanvas)

যদিও প্রথমদিকে বাজারে আসার পর, এই ওয়েবসাইটটি দ্রতগতির জন্যে অনেক বেশি নাম কামিয়েছে কিন্তু বর্তমানে এটি ততটা ভালো সেবা দিচ্ছে না। যদি উপরের কোনো ওয়েবসাইট কখনো কাজ না করে তবে, এই সাইট দিয়ে সেই কাজ চালিয়ে নিতে পারবেন। এর কিছু ফিচার হচ্ছেঃ

  • ১ গিগাবাইটের থেকে বেশি সাইজের কোনো ফাইল আপলোড করতে পারবেন না।
  • একটি ফাইল ৩ দিন পর্যন্ত একটিভ থাকে, তারপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে যায়।
  • ১০ বার কোনো ফাইল আপলোড কিংবা ডাউনলোড করার পর, রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।
  • অসংখ্য ফাইল আপলোড করতে পারবেন।

সেন্ড স্পেস (SendSpace)

২০০৫ সালে প্রথম যখন বাজারে এসেছিলো এই ওয়েবসাইট, তখন অনেকেই এটা ব্যবহার করতো। কিন্তু বর্তমানে এর রেস্ট্রিকেশনের জন্যে ব্যবহারকারী অনেক কমে গিয়েছে। এর কিছু ফিচার হচ্ছেঃ

  • কোনো ধরনের এনক্রিপশন পদ্ধতি ব্যবহার করা হয় না।
  • পাসওয়ার্ড দ্বারা সুরক্ষিত করে ফাইল শেয়ার করতে পারবেন।
  • ৩০০ মেগাবাইটের থেকে বেশি সাইজের কোনো ফাইল আপলোড করতে পারবেন না।
  • একটি ফাইল ৩০ দিন পর্যন্ত একটিভ থাকে, তারপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে যায়।

জি ডট টিটি (Ge.tt)

যারা ২০০০ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে ফাইল শেয়ারিং করতেন, তারা সবাই একবার হলেও এই ওয়েবসাইট ব্যবহার করে থাকবেন। ওয়েবসাইটটি অনেক জনপ্রিয় ছিলো। কিন্তু এর রেস্ট্রিকশন এতটাই যে, বর্তমানে এটি খুব কম মানুষ ব্যবহার করে। এর কিছু ফিচার হচ্ছে,

  • কোনো ধরনের এনক্রিপশন পদ্ধতি ব্যবহার করা হয় না।
  • পাসওয়ার্ড দ্বারা সুরক্ষিত করে ফাইল শেয়ার করতে পারবেন না।
  • ২৫০ মেগাবাইটের থেকে বেশি সাইজের কোনো ফাইল আপলোড করতে পারবেন না।
  • একটি ফাইল ৩০ দিন পর্যন্ত একটিভ থাকে, তারপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে যায়।

সেন্ড ইউআইটি (Senduit)

সবচেয়ে পুরোনো এবং সবচেয়ে কম ব্যবহৃত একটি ফাইল শেয়ারিং সাইট হচ্ছে সেন্ডইউআইটি। যদিও এর সহজ ইন্টারফেসের কারণে এই লিস্টে এটাকে মেনশন করা উচিত। এর কিছু ফিচার হচ্ছেঃ

  • অসংখ্য ফাইল আপলোড করতে পারবেন, ১০ টি ফাইলের বেশি একসাথে ডাউনলোড করতে পারবেন না।
  • ১০০ মেগাবাইটের থেকে বেশি বড় সাইজের ফাইল আপলোড করতে পারবেন না।
  • কোনো ধরনের এনক্রিপশন পদ্ধতি ব্যবহার করা হয় না।
  • পাসওয়ার্ড দ্বারা সুরক্ষিত করে ফাইল শেয়ার করতে পারবেন না।
  • একটি ফাইল ৭ দিন পর্যন্ত একটিভ থাকে, তারপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে যায়।

উপরের সবগুলো সাইট ফাইল শেয়ারিং এর ক্ষেত্রে কেনো ব্যবহার করবেন জানেন? কারণ, উপরের সবগুলো সাইটের মধ্যে কিছু ব্যাপারে মিল আছে। সেগুলো হচ্ছেঃ ফাইল শেয়ার করার জন্যে কোনো ধরনের রেজিস্ট্রেশন করার প্রয়োজন পড়ে না ও যখন ইচ্ছে ও যেখান থেকে ইচ্ছে ডাউনলোড করতে পারবেন। যদি আপনি কম সময়ে, কোনো ধরনের ঝামেলা ছাড়াই ফাইল শেয়ার এবং ডাউনলোড করতে চান তাহলে ব্যবহার করতে পারেন উপরের এই ওয়েবসাইটগুলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সুলভ মূল্যে ৫ টি সেরা লিনাক্স কম্পিউটার

গুগলের ১৩ টি সফটওয়্যার যা আপনার জীবনকে সহজ করে তুলবে