Source: https://www.theverge.com/2018/3/10/17104878/palantir-us-army-contract-peter-thiel-data-intelligence-distributed-common-ground-system-tech
in ,

সামরিক খাতে আইটি ক্যারিয়ার গড়ুন

অনেকেই ভেবে থাকেন যে, আইটিতে এবং সেনাবাহিনীতে একইসাথে ক্যারিয়ার গড়া সম্ভব হয় না। যদিও এটা সম্পূর্ণ ভুল ধারণা। প্রযুক্তির ছোঁয়া অন্য সকল চাকরির মতো সেনাবাহিনীতেও রয়েছে। তাই আজ আমরা জানবো, সামরিক খাতের নানা আইটি ক্যারিয়ার সম্পর্কে।

নেটওয়ার্ক সুইচিং সিস্টেম অপারেটর এন্ড মেইনটেইনার (Network Switching System Operator and Maintainer)

সামরিক খাতে বিভিন্ন জায়গায় কন্ট্রোল সেন্টার, ইলেকট্রনিক সুইচ, কমব্যাট রেডিও সহ অনেক ধরনের যোগাযোগ যন্ত্রাদি রয়েছে, যেগুলো প্রায় প্রতিদিনই মেরামত ও পরীক্ষা করে দেখার দরকার পড়ে। যাতে সেগুলো উপযুক্ত সময়ে সঠিক তথ্য দেখায়। এই কাজটি করে থাকেন একজন নেটওয়ার্ক সুইচিং সিস্টেম অপারেটর এন্ড মেইনটেইনার।

এক্ষেত্রে ক্যারিয়ার গড়তে হলে আপনাকে সিস্টেম এরর ট্রাবলশ্যুট করা ও বিভিন্ন ধরনের জেনারেটর, যানবাহন, সুইচবোর্ড ইত্যাদি যন্ত্র সম্পর্কে দক্ষতা থাকতে হবে।  সেনাবাহিনীতে যোগদান করার পূর্বে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এসব সম্পর্কে জানতে পারবেন। কমকাস্ট, টি মোবাইল, এটন কর্পোরেশন, সিসকো সিস্টেমস সহ আরো অনেক প্রতিষ্ঠান আছে, যারা এধরনের দক্ষতা গড়ে তুলতে সাহায্য করে।

নোডাল নেটওয়ার্ক সিস্টেম অপারেটর এন্ড মেইনটেইনার (Nodal Network System Operator and Maintainer)

সেনাবাহিনীতে যোগাযোগ ব্যবস্থার বেশ কয়েক ধরণের মাধ্যম রয়েছে। সেগুলো যদি ক্র্যাশ করে, তাহলে যোগাযোগ ব্যবস্থার বিচ্যুতি ঘটা স্বাভাবিক। একজন নোডাল নেটওয়ার্ক সিস্টেম অপারেটর এন্ড মেইনটেইনারের কাজ হচ্ছে, সব ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থা সবসময় সচল রাখা।

এ খাতে ক্যারিয়ার গড়তে হলে আপনাকে সেনাবাহিনীর যোগাযোগ কৌশল ও কার্যপদ্ধতি সম্পর্কে জানা থাকা লাগবে। এছাড়াও বিভিন্ন সিস্টেম ডিভাইসের নিয়ন্ত্রণ এবং সেগুলোকে মাঠ পর্যায়ে কাজ করানোর দক্ষতা থাকতে হবে। ডেটা প্রসেসিং, নেটওয়ার্ক সাপোর্ট ও কম্পিউটার প্রোগ্রামিংয়ের উপর দক্ষতা থাকলে আপনার জন্য অবশ্যই সেটা প্লাস পয়েন্ট হিসেবে কাজ করবে।

সিগন্যাল কালেক্টর এনালিস্ট (Signal Collector Analyst)

অনেক ক্ষেত্রেই সামরিক বাহিনীকে বিভিন ধরনের শব্দ শুনে অনেক কিছু সম্পর্কে ধারনা করতে হয়। এটা হতে পারে, কোন ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস থেকে ভেসে আসা শব্দ কিংবা শত্রুপক্ষের কোনো বার্তা। একজন সিগন্যাল কালেকশন এনালিস্টের কাজ হচ্ছে, এসব শব্দ ও বার্তা শুনে সেটা কোথা থেকে আসছে, কী দিয়ে পাঠানো হচ্ছে, কীভাব আসছে ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করা। 

এই খাতে ক্যারিয়ার গড়তে হলেও আপনাকে সেনাবাহিনীর যোগাযোগ কৌশল ও কার্যপদ্ধতি জানতে হবে। এছাড়াও কোনো তথ্য, শব্দ কিংবা বার্তা শুনে সেটাকে শনাক্ত করা, লোকেট করা এবং সেটিকে সঠিক জায়গায় প্রেরণ করার দক্ষতা থাকা লাগবে। এই কাজটি আপনি বিভিন্ন সিকিউরিটি এজেন্সি থেকে শিখতে পারবেন।

কম্পিউটার এন্ড ডিটেকশন সিস্টেম রিপেয়ারার (Computer and Detection System Repairer)

যদি কখনো যুদ্ধের মাঝখানে যুদ্ধক্ষেত্রের আর্টিলারি ডিভাইস, নাইট ভিশন অথবা ড্রোন নষ্ট হয়ে যায়, তাহলে হার প্রায় সুনিশ্চিত। এ ধরনের সমস্যা থেকে একজন কম্পিউটার এন্ড ডিটেকশন সিস্টেম রিপেয়ারার সেনাবাহিনীকে রক্ষা করতে পারেন। এছাড়াও সাইবার যুদ্ধের ক্ষেত্রে কম্পিউটারের হার্ডওয়্যার সংক্রান্ত সকল সমস্যার সমাধান করে থাকেন তিনি।

এই খাতে ক্যারিয়ার গড়তে হলে  কম্পিউটার হার্ডওয়্যার, বিভিন্ন আর্টিলারি যন্ত্রাদি ও ড্রোন সম্পর্কে দক্ষতা থাকতে হবে। সেগুলো নিয়ন্ত্রণ করা, উপযুক্ত সময়ে কাজে লাগানো এবং তৈরি করার দক্ষতাও থাকতে হবে। বিভিন্ন এয়ারলাইন্স ও স্যাটেলাইট কমিউনিকেশন অরগানাইজেশন থেকে এ ধরনের কাজের ট্রেনিং নেয়া যায়।

জিওস্পেশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইমেজারি অ্যানালিস্ট (Geo spatial Intelligence Imagery Analyst)

একজন জিওস্পেশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইমেজারি অ্যানালিস্টের কাজ হচ্ছে, বিভিন্ন ধরনের অ্যারিয়েল ছবির মাধ্যমে শত্রুপক্ষের অবস্থান, কমব্যাট অপারেশন ও যুদ্ধক্ষেত্র সম্পর্কে তথ্য প্রদান করা। এই খাতে ক্যারিয়ার গড়তে হলে আপনাকে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, বিভিন্ন ধরনের যানবাহন, সামরিক সুবিধা, ওয়েপন সিস্টেম এবং বিভিন্ন স্থান সম্পর্কে দক্ষতা থাকা লাগবে। বিভিন্ন  ইন্টেলিজেন্স ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান এ ধরনের কাজের শিক্ষা প্রদান করে।

ইনফরমেশন টেকনোলজি স্পেশালিষ্ট (Information Technology Specialist)

সেনাবাহিনীর কম্পিউটার সিস্টেম এবং সকল ধরণের প্রযুক্তির দেখাশোনা করা, নিয়ন্ত্রণ করা ও বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করাই একজন ইনফোরমেশন টেকনোলজি স্পেশালিস্টের কাজ। একজন নেটওয়ার্ক সাপোর্ট টেকনিশিয়ান বা কম্পিউটার প্রোগ্রামার অথবা ডেটা প্রসেসিং টেকনিশিয়ান এই কাজের জন্যে আবেদন করতে পারবেন।

এইচ আর স্পেশালিস্ট (HR Specialist)

অন্যান্য  মতোই সামরিক বাহিনীতেও প্যারল, বাজেট ব্যবস্থাপনা এবং অন্যান্য অর্থনৈতিক কাজের জন্যে এইচ আর স্পেশালিস্টের দরকার পড়ে। এই ক্ষেত্রে ক্যারিয়ার গড়তে হলে আপনাকে ব্যবস্থাপনা, অর্থনীতি, মানবসম্পদ বিভাগ এবং প্রশাসনিক কাজে দক্ষ হওয়া লাগবে। এছাড়াও কম্পিউটার এবং প্রযুক্তির সাথেও বেশ সখ্যতা থাকতে হবে।

সামরিক খাতে আইটি ক্যারিয়ারে বেতন

অন্যান্য সাধারণ ক্যারিয়ারের মতোই সামরিক খাতেও দক্ষতা, শিক্ষা ও সেবার সময়কালের উপর বেতন নির্ভর করে। সামরিক খাতে অতিরিক্ত যোগ হয় র‍্যাংকিং ও শাখা। এছাড়াও সামরিক সদস্যের জন্যেই অতিরিক্ত বোনাস, ওভারটাইম ও ভাতা রয়েছে। এছাড়াও প্রত্যেক দেশেই সামরিক বাহিনীর সদস্যদের সরকারী বাসভবন দেয়া হয়।

আইটি খাতে একজন সাধারণ সামরিক সদস্য প্রায় লক্ষাধিক টাকা আয় করতে পারেন। যদিও এটা নির্ভর করে কাজ এবং দায়িত্বের উপর। এছাড়াও প্রায় প্রত্যেক বছরেই সামরিক সদস্যদের বেতন ও বোনাস বৃদ্ধি পেয়ে থাকে।

সামরিক খাতে আইটি ক্যারিয়ার গড়তে হলে যেসব যোগ্যতা থাকা প্রয়োজন

কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং, ইনফোরমেশন টেকনোলজি, ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং, টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং ইত্যাদি যেকোনো একটি বিষয়ের উপর অনার্স কিংবা মাস্টার্স ডিগ্রি থাকা লাগবে। এছাড়াও অন্যান্য বিশেষ পদের ক্ষেত্রে বিশেষ ডিগ্রি কিংবা ডিপ্লোমার প্রয়োজন পড়তে পারে।

সামরিক খাতে আইটি বা যে কোন পদেই ক্যারিয়ার গড়তে হলে  আপনার থাকা চাই সততা, সাহস ও দেশের প্রতি ভালোবাসা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ইলুমিনাতি বা দ্যা ইলিউমিনাটিঃ বিশ্ব যাদের নিয়ন্ত্রণে

যেভাবে একজন সিস্টেম অ্যাডমিনিস্ট্রেটর হিসেবে ক্যারিয়ার গড়বেন