Source: https://news.abs-cbn.com
in , ,

গেইম খেলে কি আসলেই আয় করা যায়?

: ১৪ বছরের একটা ছেলে প্রত্যেক বছরে ২ লাখ ডলার বা ১ কোটি টাকার উপরে আয় করছে!

: কীভাবে?

: গেইম খেলে!

: এখনো গেইমারদের দোষ দেন! তাদের কোনো কাজ নাই! 🙂

: রাইট রাইট!

এটা সম্ভব? গেইম খেলে কীভাবে টাকা আয় করবো! আব্বু-আম্মি গেইমের জন্য বকাবকি করে! তারা তো কিছু বলে না!

বেশিরভাগ মানুষের কাছেই শুনবেন যে, গেইম খেলে টাকা আয় করার সম্ভব না। এসব শুধুই স্ক্যাম! কিন্তু আসলেই কি স্ক্যাম? চলুন তাহলে একটু দেখে আসা যাক!

দেশে এবং দেশের বাইরে গেইম খেলে অনেকেই মোটা অংকের অর্থ আয় করছে কিন্তু তার মাঝে খুব কম মানুষই সঠিকভাবে সেটাকে প্রসেস করতে পারছে। গেইম খেলে আয় করা মানে গেইমের মধ্যে আয় করতে হবে সেটা নয়, আপনি ‘গেইমিং’ শব্দটাকে ব্যবহার করেও আয় করতে পারেন।

জিএসএন ক্যাশ গেইমস

জিএসএন ক্যাশ গেইমস হচ্ছে সবচেয়ে বিশ্বাসযোগ্য একটি গেইমিং সাইট যেখান থেকে আপনি প্রায় প্রত্যেক গেইম খেলেই ৫০ ডলারের বেশি আয় করতে পারবেন। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হচ্ছে, জিএসএন ক্যাশ গেইমস মূলত জিএসএন গেইম শোর একটি অংশ। যেটার সম্পুর্ণ মালিকানা হচ্ছে সনি এন্টারটেইনমেন্ট এবং এটিঅ্যান্ডটি এন্টারটেনমেন্টের।

জিএসএন ক্যাশ গেইমস মূলত পূর্বে ‘ওয়ার্ল্ড উইনার’ হিসেবে পরিচিত ছিল। বর্তমানে এটি সবচেয়ে পপুলার একটি গেইমিং প্লাটফর্ম। আপনি এখানে অনেকগুলো গেইমিং কম্পিটিশন খুঁজে পাবেন যেগুলোতে জয়েন করতে মাত্র কয়েক ডলার দরকার পড়ে কিন্তু সেগুলো থেকে আপনি প্রায় ৫০ ডলারের বেশি আয় করতে পারবেন।

জিএসএন ক্যাশ গেইমসে আপনি যেকোনো ক্যাটাগরির গেইম খুঁজে পাবেন। একেবারে কার্ড গেইম থেকে শুরু করে একশন গেইম পর্যন্ত। জিএসএন ক্যাশ গেইমস, তার ইউজারদেরকে প্রায় প্রত্যেক মাসেই মিলিয়নের উপর ডলার দিচ্ছে।

সোয়াগবাক্স

সোয়াগবাক্স যদিও একটি গেইমিং সাইট নয়, তারপরও এখান থেকে আপনি গেইম খেলে আয় করতে পারবেন। গেইম খেলে আয় করার জন্য সোয়াগবাক্স অসাধারণ একটি সাইট। এখানের ইউজাররা প্রায় ১৫০ মিলিয়ন ডলারের উপর পেয়েছে।

আপনি সোয়াগবাক্সে গেইম ছাড়াও অন্য যেকোনো কাজ করে আয় করতে পারবেন। সোয়াগবাক্সে একাউন্ট খোলার পর আপনাকে ১০ ডলার ফ্রি দেয়া হবে। এই ১০ ডলার দিয়ে আপনি যেকোনো একটি গেইমিং টুর্নামেন্টের নাম লেখাতে পারেন আর তারপর সেই গেইমিং টুর্ণামেন্টে যদি আপনি জয়ী হন তাহলে আপনি পেপালের মাধ্যমে টাকাটা ক্যাশ আউট করতে পারবেন।

সোয়াগবাক্স থেকে আয় করার আরেকটি ভালো উপায় হচ্ছে, পে টু প্লে। সোয়াগবাক্সে মাত্র ১ ডলার খরচ করে এসব পে টু প্লে গেইম খেলার পর আপনি সেই এক ডলার দিয়ে ১৮ ডলার ব্যাক করাতে পারবেন।

সেকেন্ড লাইফ

সেকেন্ড লাইফ অসাধারণ একটি গেইম যেখানে আপনি সিমস রিলেটেড গেইম খেলে আয় করতে পারবেন। এখানে যদিও আপনি সরাসরি ডলার পাবেন না কিন্তু এখানে যে ‘ইন গেইম কারেন্সি’ থাকে সেটাকে আপনি ডলারে রূপান্তরিত করতে পারবেন।

সেকেন্ড লাইফ এত তাড়াতাড়ি পপুলার হতে পারতো না, যদি না একটা চাইনিজ মেয়ে ২৫০ মিলিয়ন ইন গেইম ডলার কনভার্ট করে প্রায় ১ মিলিয়ন ডলার আয় না করতো। বর্তমানে প্রায় দুই মিলিয়নের বেশি মানুষ এই গেমটি খেলছে।

বিঙ্গো

বিঙ্গো অসাধারণ একটি অনলাইন গেইম। আপনি যদি এই সাইটটাকে ভালবেসে থাকেন তাহলে আপনি এই সাইটটাতে রেজিস্টার করতে পারেন। বিঙ্গোর ওয়েবসাইটে আপনি প্রায় কয়েক ধরনের বিঙ্গো রিলেটেড গেইম খুঁজে পাবেন। আপনি সেগুলো খেলে এখান থেকে প্রায় ১ ডলার থেকে শুরু করে আরো বেশি অর্থ আয় করতে পারবেন।

ইনবক্স ডলারস

ইনবক্স ডলারস বেশ পপুলার একটি রিওয়ার্ড সাইট, যেখান থেকে আপনি শুধুমাত্র গেইম খেলেই নয় বিভিন্ন ধরনের কাজ করে আয় করতে পারবেন। এটা অনেকটা জিএসএন ক্যাশ গেইমসের মতই। এখানে আপনি যতগুলো ডলার খরচ করবেন সবগুলোই তাদের নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ফেরত পাবেন।

ইনবক্স ডলারস ২০০০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এবং ১৯ বছর ধরে এটা ৮০ মিলিয়ন ডলারের বেশি অর্থ দিয়ে যাচ্ছে।

তো নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন যে, এভাবেও গেইম খেলেও আপনি বেশ কয়েকটা সাইট থেকে আয় করতে পারবেন। নিচে আমি আরো কিছু ওয়েবসাইট দিয়ে দিচ্ছি যেগুলো থেকে আপনি গেইম খেলে অনেক ভালো ভাবেই মোটা অংকের অর্থ আয় করতে পারবেনঃ

১. ক্যাশ ক্রেইট ২০০৭ সাল থেকে প্রায় দুই মিলিয়ন ইউজার নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে!

২. শুধুমাত্র গেম খেলা ছাড়াও অন্যান্য আরো অনেক উপায়ে আয় করার জন্য অ্যাপ সেন্ট নামক এই সাইটটি অসাধারণ ভূমিকা রাখছে।

৩. একশন গেইম থেকে শুরু করে স্পোর্টস গেইম পর্যন্ত যেকোনো ধরনের গেইম খেলে আয় করার জন্য ক্লিপ টু প্লে আরও একটি অসাধারণ ওয়েবসাইট।

৪. গেমিং দুনিয়ায় প্রথম পেইড গেইমিং ওয়েবসাইট হচ্ছে গেমসভাইল, এটা অনেক আগে থেকেই মার্কেটে ছিল।

৫. লালা লোট নামক আরেকটি ওয়েবসাইট যেখান থেকে আপনি শুধুমাত্র টাকাই নয়, সরাসরি বিভিন্ন ধরনের ক্যাশ প্রাইজও জিততে পারবেন।

৬. পেইড গেম প্লেয়ার নামক আরেকটি ওয়েবসাইট, যারা অলরেডি ২ লক্ষ ৫০ হাজার ডলার ক্যাশ প্রাইজ দিয়ে দিয়েছে।

৭. প্লে অ্যান্ড উইন নামক আরেকটি ওয়েবসাইট যেটা মূলত ইংল্যান্ড থেকে তৈরি করা হয়েছে। যদিও সেটা ইউজ করার জন্য আপনাকে ইংল্যান্ডের অধিবাসী হতে হবে না কিন্তু সেখান থেকেও আপনি গেইম খেলে অনেক ভালো ভাবেই অর্থ আয় করতে পারবেন।

৮. এক্সোডাস নামে আরেকটি গেইমসও আছে এই লিস্টে। এই গেইমসটি মূলত আরপিজি বা রোল প্লেয়িং গেইম। এটা থেকেও আপনি অর্থ আয় করতে পারবেন।

৯. এখন পর্যন্ত আলোচিত সবচেয়ে বিশ্বাসযোগ্য একটি গেমিং ওয়েবসাইট হচ্ছে পোগো। এটার গেইম ডেভলপার হচ্ছে ইলেক্ট্রনিক আর্টস বা ইএ।

এছাড়াও আরো বেশ কিছু অসাধারণ গেইম খেলে আয় করার মতো ওয়েবসাইট হচ্ছে,

১০. এক্স ওয়াই গেইমিং
১১. বিঙ্গো ফর মানি
১২. ফ্রি স্লটস ফর ইউ
১৩. স্লিংগো
১৪. ডলার ক্যান্ডি
১৫. গিভ লিং
১৬. গেইম লুট নেটওয়ার্ক
১৭. কর্পোরেশন মাস্টার
১৮. কুইক রিওয়ার্ডস
১৯. পিসিএইচ গেইমারস
২০. টুইচ

সুতরাং বুঝতেই পারছেন যে গেইম খেলেও বেশ ভালো হবে অর্থ উপার্জন করার মত অনেকগুলো ওয়েবসাইট রয়েছে। কিন্তু আপনি আসলে ভাবছেন টা কি? কাজ করাটা কি এতটাই সহজ?!

ঠিক ধরেছেন! গেইম খেলে আয় করার জন্য আপনার শুধুমাত্র গেইম খেললেই চলবে না, আপনার একটি স্ট্র্যাটেজিক পথে এগুতে হবে। আর সেজন্য আপনার প্রথমে যে জিনিসগুলো দরকার পড়বে সেগুলো হচ্ছে,
১. কম্পিউটার
২. ভালো নেটওয়ার্ক
৩. গেইমিং করার দক্ষতা ও আগ্রহ

আজকের মতো এখানেই শেষ করছি!

যে কোন প্রশ্নের জন্য কমেন্ট করতে পারেন নিচের কমেন্ট বক্সে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কীভাবে একজন প্রাণীবিশারদ হিসেবে ক্যারিয়ার গড়বেন

হিউম্যান হ্যাকিংঃ কী ও কীভাবে?