Source: sandboxadvisors.com
in

ছাত্রছাত্রীরা যেসকল কারনে ভুল ক্যারিয়ার নির্বাচন করে থাকে

এমন কোন কাউকে হয়তো খুঁজে পাওয়া যাবে না যে ছাত্রজীবন শেষ করে বড় কিছু করার স্বপ্ন দেখে না। অনেকের খুব বেশি বড় হবার স্বপ্ন না থাকলেও ক্যারিয়ার নিয়ে চিন্তা ভাবনা সকল ছাত্ররাই সাধারণত করে থাকে। সে ভাবনায় প্রত্যেকেরই ভাল একটি ক্যারিয়ারের স্বপ্ন থাকলেও অনেকক্ষেত্রেই দেখা যায় তা  সফলতার মুখ খুব একটা দেখেনা। এর মূল কারণ, হঠাতই ভুল একটি ক্যারিয়ার নির্বাচন করে ফেলা।চলুন দেখে নেই ছাত্রছাত্রীরা ভুল ক্যারিয়ার নির্বাচনের পেছনে কোন কোন কারণগুলো প্রধান প্রভাবক হিসেবে কাজ করছে।

পড়াশোনার বাহিরেও অহেতুক অন্য বিষয়গুলোর চাপ গ্রহণে বাধ্য হওয়া

আজকালকার যুগের ছাত্রছাত্রীদের উপর পড়াশোনার চাপ আগের তুলনায় যথেষ্ট বেশি। অন্তত  আজ থেকে ১০ বছর আগের তুলনায় যে বেশি তাতে সন্দেহের কোনো অবকাশ নেই। ঠিকমত স্কুল কলেজে ক্লাস করা থেকে শুরু করে প্রাইভেট টিউশন এবং স্কুল কলেজের বিভিন্ন মডেল টেস্টের চাপ প্রতিটি ছাত্রছাত্রীর জন্যেই থাকে। এতসব চাপের ভিড়েও অনেকে ভবিষ্যৎ ক্যারিয়ারের কথা ভেবে কোনো একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে কোর্স করার মতো সিদ্ধান্তও গ্রহণ করে ফেলে।

এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়ার মতো ব্যাপারগুলো যেকোনো ছাত্রছাত্রীর জন্যে অবশ্যই ভালো একটি দিক। তবে যদি কোনভাবে এমন কোনো কোর্স কোনো ছাত্র বা ছাত্রী নির্বাচন করে ফেলে যেটি তার ক্যারিয়ারের ক্ষেত্রে তেমন কোনো ভূমিকা রাখবে না, সেক্ষেত্রে পরবর্তীতে কোর্স শেষ করার পর তার সেই সিন্ধান্তটিই ক্যারিয়ার নির্বাচনের ক্ষেত্রে একটি সমস্যা হয়ে দাঁড়াতে পারে।

বাবা মায়ের স্বপ্ন পূরণ

প্রতিটি সন্তানের জন্যে বাবা মায়েরা হয়ে থাকেন সন্তানের সর্বপ্রথম পথপ্রদর্শক। সন্তানের একটি নিশ্চিত ভালো ভবিষ্যৎ স্বাভাবিকভাবেই তারা চেয়ে থাকেন। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় ভালো একটি ভবিষ্যৎ চাওয়ার প্রত্যাশা থেকে সন্তানের উপর প্রায়শই চাপিয়ে দেয়া হয় তাদেরই কিছু অপূর্ণ স্বপ্ন বাস্তবায়নের চাপ।

ফলে অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় যে ছেলেটি অথবা মেয়েটি একজন সিভিল ইঞ্জিনিয়ার হতে চেয়েছিল, পরিবারের চাপে সে শেষ পর্যন্ত ডাক্তারি পড়তে বাধ্য হচ্ছে। ফলশ্রুতিতে যে ক্যারিয়ারে তার ভালো করার সম্ভাবনা প্রবল ছিল, সেখান থেকে সে অনেকটাই ছিটকে যায় পরিবার থেকে নির্ধারণ করে দেয়া কোনো ক্যারিয়ারের রাস্তায় তাকে নামিয়ে দেয়ার জন্যে।

জব মার্কেটের চাহিদা দেখে ক্যারিয়ার গ্রহণের প্রবণতা

বেশিরভাগ ছাত্রছাত্রীরই স্বপ্ন থাকে, গ্রাজুয়েট হবার পর তারা তাদের গ্রাজুয়েশন করা বিষয় সম্পর্কিত  কর্মক্ষেত্রগুলোতে চাকরি করে ক্যারিয়ার গড়বে। ফলে বর্তমান জব মার্কেটে কোন সেক্টরের দক্ষ লোকবলদের চাহিদা প্রবল, সেটির উপর ভিত্তি করে ছাত্রছাত্রীরা সেই সেক্টরটিতে নিজের ক্যারিয়ার গড়ার একটি সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলে। প্রস্তুতি হিসেবে সে সম্পর্কিত বিষয়ে পড়াশোনা চালিয়ে যাবারও সিদ্ধান্ত নেয়।

তবে একটি অপ্রিয় বাস্তবতা হচ্ছে, জব মার্কেটের চিত্রটি সর্বদা পরিবর্তনশীল। আজকের এই ২০১৮ সালে যেসব সেক্টরে জব মার্কেটের অর্থনৈতিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে, আজ থেকে ঠিক ১০ কিংবা ১৫ বছর পর সে চিত্র থেকে কিছুটা পরিবর্তিত অবস্থানে চলে আসবে সেটি অনেকটা নিশ্চিতভাবেই বলছে অনেক পরিসংখ্যান। ফলে এই অন্ধভাবে ক্যারিয়ার নির্বাচন অনেক ছাত্রছাত্রীকে অনেকটাই পিছিয়ে দিচ্ছে তার জীবন থেকে।

সামাজিকতার বাস্তবতার মুখোমুখি হবার ভয়

ছাত্রছাত্রীদের ভেতর আরও একটি চিন্তা বেশ কাজ করে থাকে। সেটি হচ্ছে, সেই ছাত্র বা ছাত্রীটি যে পথে নিজের ক্যারিয়ার গঠনের ক্ষেত্রে ইচ্ছুক, সে পথে গড়া ক্যারিয়ারটি তার বাবা মায়ের মুখ উজ্জ্বল করতে সক্ষম কিনা। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় ভালো একটি পথে একটি ভালো ক্যারিয়ার গঠনের সুযোগ থাকলেও সামাজিকতার কথা মাথায় রেখে ছাত্রছাত্রীরা সে পথে না যেয়ে অন্য কোন একটি পথকে বেছে নেয়। উদাহরণস্বরূপ ফ্রিল্যান্সিং এর কথা বলা যেতে পারে।

যারা অনলাইন জগতের সঙ্গে কিছুটা সম্পৃক্ত আছেন, তাদের সিংহভাগই হয়তো জানেন যে যেকোনো ছাত্রছাত্রীর জন্যে ফ্রিল্যান্সিং বেশ ভাল একটি ক্যারিয়ার হতে পারে। এই ক্যারিয়ারে বেশ ভালো পরিমান উপার্জনও সম্ভব। কিন্তু আমাদের দেশের বেশিরভাগ মানুষের কাছেই এ সেক্টর সম্পর্কে কোনো ধারনা না নেই। তাই নতুন একটি সমস্যার মুখোমুখি ছাত্রছাত্রীদের পড়তে হচ্ছে। ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরে তারা ক্যারিয়ার গড়লেও সেরকম কোনো মর্যাদা সমাজ হতে পায় তারা না, যেমনটি একজন ডাক্তার কিংবা ইঞ্জিনিয়ার পায়। ফলে এই ভয় থেকেও ছাত্রছাত্রীরা এমন কোনো ক্যারিয়ারকে বেছে নেয়ার চেষ্টা করে, যেখানে সে সামাজিক মর্যাদা পাবে। যদিও সেটি তার জন্যে ভালো সিদ্ধান্ত নাও হতে পারে।

মূলত এগুলোই হচ্ছে সেসকল কারণ যেগুলো ছাত্রছাত্রীরা ভুল ক্যারিয়ার নির্বাচনের ক্ষেত্রে প্রভাবক হিসেবে কাজ করে থাকে। এবার চলুন সেগুলোর সমাধান নিয়ে আলোচনা করা যাক।

সঠিক ক্যারিয়ার নির্বাচন করার উপায়

সর্বপ্রথমেই একজন ছাত্র কিংবা ছাত্রীর একটি কাজ করা প্রয়োজন। সেটি হচ্ছে কোনো প্রকার দ্বিধাদ্বন্দ্বে না ভোগা। সেই সঙ্গে তার জন্যে ঠিক কোন পথে ক্যারিয়ার গড়া সত্যিকার অর্থেই ভালো হবে, সেটি খুঁজে বের করা। একই সঙ্গে খেয়াল রাখা প্রয়োজন, সেই ক্যারিয়ার গড়ার পথটিতে যেন খুবই মজাদার একটি অভিজ্ঞতা হবার সুযোগ থাকে।

অর্থাৎ এমন একটি বিষয় খুঁজে বের করা উচিৎ, যে বিষয়ে তার পড়তে এবং ভাবতে ভাল লাগে। বাস্তবে দেখা যায় এভাবে ভেবে এবং পরিকল্পনা করে যারা ক্যারিয়ার গঠনের পথে হেঁটেছেন , তাদের সফলতার হার অন্যদের চাইতে বেশি। এরা সবসময়ে নিজেদের ক্যারিয়ারের ব্যাপারে উদ্যমী রাখতে সক্ষম হন।

সংগৃহীত ও পুনর্লিখিত

2 Comments

Leave a Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ফ্রিল্যান্সারদের সম্বন্ধে ৫টি ভুল ধারণা

শিক্ষার্থীদের জন্য আয় করার সেরা কিছু মাধ্যম