OtherParapsychology

কী হবে যদি সত্যিই পৃথিবীর অর্ধেক জনসংখ্যা হঠাৎ করেই মারা যায়?

আচ্ছা, কী হবে যদি সত্যিই পৃথিবীর অর্ধেক জনসংখ্যা হঠাৎ করেই মারা যায়?

অ্যাভেঞ্জারস ইনফিনিটি ওয়ারের কথা বলছি না আমি। কিন্তু সত্যি সত্যিই যদি পৃথিবীর অর্ধেক জনসংখ্যা চোখের পলকে মারা যায় কিংবা গায়েব হয়ে যায়, তাহলে কি হবে???

পৃথিবীর বর্তমান জনসংখ্যা প্রায় ৭.৭ বিলিয়ন! মানে প্রায় ৭৭০ কোটির কাছাকাছি। এখন ধরুন, হঠাত করেই একসাথে অর্ধেক জনসংখ্যা অর্থাৎ ৩.৮৫ বিলিয়ন মানুষ পৃথিবী থেকে গায়েব হয়ে গেলো।

এখন আপনি যদি সেই আনফরচুনেট ৩.৮৫ বিলিয়ন মানুষের মাঝে হয়ে থাকেন – যারা মারা গিয়েছে; তাহলে তো গায়েব হয়েই গেলেন। কিন্তু যদি আপনি বাকি অর্ধেক – যারা এখনো বেঁচে আছে তাদের মধ্যে হয়ে থাকেন, তাহলে কি হবে আপনার?

আপনি কি সারভাইভ করতে পারবেন? কীভাবে সমাজব্যবস্থা চলবে? আর আসলেই কি এটা ভালো কিছু?

শুরুতেই যেটা হবে সেটা হচ্ছে, প্রচন্ড পরিমাণ ভীত ও আতংকগ্রস্থ হয়ে যাবে মানুষ। আর তারপর শুরু হবে চরম বিশৃঙ্খলা। কীভাবে?

ওতো গভীরে না গিয়ে ছোটো করে বলি! শুরুতেই প্লেন ক্রাশের কথা ধরি। 
সারা পৃথিবীতে প্রত্যেক মিনিটে প্রায় ১০ হাজারেরও বেশি প্লেন উড়ছে! প্লেনগুলো প্রায় ১০ লাখের বেশি মানুষ নিয়ে আকাশে উড়ে বেড়াচ্ছে! যার ফলে যারা হঠাত করে মারা যাবে তাদের মধ্যে পাইলটদের হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বেশ ভালো পরিমাণ। সে হিসেবে সেই প্লেনগুলো যেকোনো জায়গায় ক্রাশ করতে পারে। একইভাবে রয়েছে ট্রেন, বাসসহ প্রায় বেশ কয়েকধরণের যানবাহন!

তারপরে রয়েছে হাসপাতালের ডাক্তাররা, রোগীরা, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা ইত্যাদি ইত্যাদি। যারা হঠাৎ করে মারা গেলো। স্বাভাবিকভাবেই তাদের আশেপাশের মানুষ ভীত অবস্থায় চরমভাবে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করবে।

ধরে নিলাম যে, আপনি এই বিশৃঙ্খলা থেকে কোনোভাবে বেঁচে গেলেন। আপনার পরিবার-পরিজন কিংবা আপনার বন্ধুবান্ধবদের অর্ধেক মারা যাওয়ার যে শোক, যে বেদনা সেটা কাটিয়ে উঠেছেন আপনি। কিন্তু তারপর?

শুরুতেই যাদের ইম্পোর্টেন্ট চাকরি ছিলো, যাদের দরকার ছিলো বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ খাতগুলোতে – তাদের অর্ধেক তো মারা গেলো। তাহলে? এদের মধ্যে যারা পাওয়ার গ্রিডে কাজ করে, বিদ্যুতের সাথে জড়িত – তারাও তো মারা যাবে, সবাই না হোক, অর্ধেক? 
যার ফলে সারা পৃথিবীতে নেমে আসবে অন্ধকারাচ্ছন্ন অবস্থা! মানুষ তখন আরো বেশি ইনসিকিউর ফিল করবে। একইসাথে খাবারদাবার যারা সরবরাহ করে, তাদেরও অর্ধেক মারা যাবার ফলে – হঠাৎ খাবারের সংকট দেখা দেবে।

এখন কি হবে?

আচ্ছা আমি যদি বলি যে, মানবজাতি এর আগেও এই ধরণের সমস্যার কাছাকাছি একটা সমস্যা থেকে ধাক্কা খেয়ে এসেছে! বিশ্বাস করবেন?

এটাকে বলে ব্ল্যাক ডেথ!

১৩০০ সালের মাঝামাঝি সময়ে ইউরোপে এক ধরণের ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশনের কারণে প্রায় ২৫ মিলিয়ন অর্থাৎ ২৫০ লক্ষ মানুষ মারা যায়! যেটা ছিলো তখনকার ইউরোপের পুরো জনসংখ্যার অর্ধেক!

তাহলে একই জিনিস যদি পুরো পৃথিবীর ক্ষেত্রে হয়, তাহলে?

পুরো পৃথিবীতে শুধুমাত্র ক্ষুধার কারণে প্রত্যেক বছরে প্রায় ৩৬০ লক্ষ মানুষ মারা যায়। সুতরাং, যদি অর্ধেক জনসংখ্যা মারা যায় আর একই পরিমাণ খাবার থাকে বা উৎপন্ন করা সম্ভব হয়, তাহলে এই সমস্যার সমাধান হয়ে যাচ্ছে! তাই না?

উপকার শুধু এটাই নয়।

ধরুন, কোনোভাবে পৃথিবীর অর্থনৈতিক অবস্থা এই গণ মৃত্যু থেকে বেঁচে গেলো। যার ফলে এবার যারা বেঁচে আছে তারা তাদের কাজের দক্ষতার জন্য বেশি অর্থ পাবে। যার ফলে ধনী হওয়াটা তখন সত্যিকার অর্থেই মজার একটা খেলায় পরিণত হবে। কারণ, মানুষ কম থাকার কারণে আপনার দক্ষতার দাম বেড়ে যাবে; যার ফলে আপনার বেতন স্বাভাবিকভাবেই দ্বিগুণ কিংবা আরো বেশি হয়ে যাবে।

যেহেতু অর্ধেক জনসংখ্যা মারা গিয়েছে, সেহেতু অনেক পরিমাণ জায়গা জমি আর ঘরবাড়ি খালি পড়ে থাকবে, যেগুলো চাইলেই আপনি নিজের করে নিতে পারবেন। যার ফলে বাসস্থানের সমস্যাও আর থাকবে না!

আচ্ছা, মানুষ বাদে বাকি সব প্রাণীর কি হবে? 
আসলে এটা প্রকৃতি নিজে নিজেই সবকিছুর সাথে খাপ খাইয়ে নেবে।

আর কম মানুষ থাকার কারণে আবহাওয়াও হঠাত করেই পালটে যেতে শুরু করবে। অবশ্যই ভালোর দিকে। অর্ধেক জনসংখ্যা মানে কম দূষণীয় অবস্থা আর কম দূষণ মানে প্রকৃতির কম ক্ষতি হওয়া তাই না?

সুতরাং, অর্ধেক জনসংখ্যা হঠাত করে মারা যাওয়া মানে আমরা মোটামুটি আগামী ১০০ বছর বেশ ভালোভাবেই বাঁচতে পারবো।

কিন্তু আমরা মানুষ! আমরা আবার ঘুরে ফিরে ৫০ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে আগের জায়গায় চলে আসবো।

সেই আগের অতিরিক্ত জনসংখ্যা, সেই আগের অবস্থা, সেই আগের দূষণ, সেই আগের প্রকৃতি আর সেই আগের সব চিরচেনা রূপ!

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker